Jahnabi's Musings

Contemplating life in poetry, prose and pictures

স্বপ্নের মধ্যে

স্বপ্নতে এলে তুমি,
তোমার কোমল ওষ্ঠ আমার অধরে।
রাত পোহাল, স্বপ্ন ভেঙে গেল।
কোথা থেকে এল দাগ আমার চিবুকে?

মেঘদূত, হংসদূত।
আমার জন্য কী প্রযোজন?
অনেক দূর হতোও আমি যদি আমি লাভ করি
কল্পনার বলেই তোমার আলিঙ্গন?

আকাশে ঘনঘোর,
একটুকুও আলো নেই।
তবে মুখ তোলে দেখি
রজনীগন্ধার অব্যাহত বৃষ্টি।
–জাহ্নবী বরুয়া

উন্মাদক বাঁশি

এই তারাময় আকাশী রাতে,
উজ্জ্বল চাঁদের তলায়,
রে শ্যাম,
তুই কোথায় বাজাইতেছিস
তোর উন্মাদক বাঁশি?
পাগল বানাইল আমাকে।

মধুবনের ভিতরে তোকে খুঁজলাম,
খুঁজলাম পর্ণকুটিরে,
পদ্মের বিছানার পাশে।
মনে আছে প্রেম করেছিলাম আমরা ওখানে?
তোর গন্ধ রয়ে গেছে,
আর বাঁশির উন্মাদক নাদ।
রে শ্যাম,
তুই কোথায় আছিস বাঁশি বাজাইয়া?
–জাহ্নবী বরুয়া

আমার জন্মভূমি

unnamed আমার বাড়ি, গুয়াহাটীর প্রকৃতির বুকে। পাহাড়ের মধ্যে, নদীর তীরের কাছে। ঘন সবুজ পরিবেশ, নারকেল গাছের সারি। মন থাকে এখানকার আঁকাবাঁকা রাস্তাতে, পাখিদের কূজনে, বানরের দুষ্টুমিতে, নীল আকাশে আর মহাবাহু ব্রহ্মপুত্রে।

মহাবাহু ব্ৰহ্মপুত্ৰ

image

উজান বজাৰৰ ঘাটত,
বৈ যায় মহাবাহু ব্ৰহ্মপুত্ৰ
শান্ত-শিষ্ট, দেখি যেন লাগে–
লাজ কৰিছে নিশ্চয় ৰ’দৰ পোহৰত৷
কিয়নো–
আন্ধাৰ পৰিলেই,
শীতল চন্দ্ৰৰ ৰশ্মিৰ তলত,
আবেগে জাগি উঠে,
সাৱটি ধৰিব পৃথিবীক৷
–জাহ্নবী বৰুৱা

শ্যামল

শিউলি ফুলের মালা গেঁথে,
অঙ্গে-অঙ্গে চন্দন মেখে,
শ্যামল রেশমী শাড়ি পরে,
পানের বাটা সাজিয়ে,
আমি দাঁড়িয়ে আছি অঙ্গনে,
এই শারদী পূর্ণিমা রাতে।
তুই কোথায় আছিস লুকিয়ে?

মুখ তুলে দেখি আকাশে,
শরদিন্দু ইতিমধ্যে ফ্যাকাশে,
বাগানের শিউলি ফুলে তিল তিল অশ্রু-বিন্দু,
আর আমার বুকের অশ্রু বিন্দু সাগর–
শুকনো এখন আঁচলে।
কিরে কিশোর,
দেখ আমার আঁচলের রং!
তোর শ্যামের চেয়েও বেশি শ্যাম!
–জাহ্নবী বরুওয়া

Follow

Get every new post delivered to your Inbox.

Join 121 other followers